বৃহস্পতিবার বলরামপুর ও জয়পুর পঞ্চায়েত সমিতি বোর্ড গঠনকে কেন্দ্র করে অশান্তি ঘটনায় যুক্ত বিজেপির মোট ১১  জন সদস্যকে গ্রেফতার করল পুরুলিয়ার বলরামপুর ও জয়পুর থানা পুলিশI শুক্রবার অভিযুক্তদের পুরুলিয়া জেলা আদালতে পেশ করা হয়I গত বৃহস্পতিবার পুরুলিয়ার বলরামপুর ব্লকে পঞ্চায়েত সমিতি গঠন কে কেন্দ্র করে পুলিশ ও বিজেপি সমর্থকদের মধ্যে খণ্ডযুদ্ধে বাদেI অভিযোগ বিজেপি কর্মীরা পুলিশ কে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছোড়া হয়I অন্যদিকে পাল্টা পুলিশ লাঠিচার্জ করে বলে বিজেপির দাবিI  ঘটনা বেশ কয়েকজন পুলিশ কর্মী আহত ও গাড়ি, বাইক ভাঙচুর হয়I অন্যদিকে জয়পুরে পঞ্চায়েত সমিতি গঠন প্রক্রিয়া কে কেন্দ্র করে অশান্তি সৃষ্টি হয় I অভিযোগ  বিজেপি পঞ্চায়েত সমিতির সদস্য কর্মরত বিডিও কে মারধরের করেI  এর পরেই ব্লক প্রশাসনের তরফে জয়পুর থানায় 8 বিজেপি পঞ্চায়েত সমিতির সদস্য বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করে জয়পুর ব্লক প্রশাসন I বৃহস্পতিবার রাতে বলরামপুর থেকে বিজেপির জেলা সম্পাদক বিবেক রাঙ্গা ও বজরং দলের সদস্য বিরিঞ্চি মহাতো সহ বিজেপি 9 জন সদস্য ও জয়পুরের পঞ্চায়েত সমিতির দু'জন সদস্য কে গ্রেপ্তার করা হয়I এদিন ধৃতদের পুরুলিয়া জেলা আদালতে পেশ করা হয়I এদিন আদালত চত্বরে কোন অপ্রীতিকর ঘটনা রুখতে মোতায়েন করা হয় বিশাল পুলিশবাহিনীI বিজেপির জেলা সভাপতি বিদ্যাসাগর চক্রবর্তী  দাবি শাসক দল ও পুলিশ রাজনৈতিক প্রতিহিংসা জেরে বিজেপি সদস্যদের অন্যায় ভাবে গ্রেফতার করা হচ্ছেI  জয়পুরে পঞ্চায়েত সমিতির সদস্যদের মারধর করেছে পুলিশ সেখানে নিজেদের বাঁচাতে পাল্টা বিজেপি সদস্যদের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করেছে ব্লক প্রশাসন  I যদিও বিজেপি এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে জেলাশাসক অলোকেশ প্রসাদ রায়  I সহ তৃণমূল নেতা জয় ব্যানার্জি। তৃণমূলের পাল্টা অভিযোগ পুলিশ প্রিজাইডিং অফিসার সহ তৃণমূল কর্মীদের উপর মারধর করা এবং তাদের গাড়ি ভাঙচুর করেছে বিজেপি নেতা কর্মী সমর্থকরা আইন আইনের পথেই চলবে। এদিন বিচারক সমস্ত সওয়াল-জবাব শোনার পর ধৃত বিজেপি নেতা কর্মীদের ১১ জামিন মঞ্জুর করেন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

Blogger দ্বারা পরিচালিত.